শুক্রবার, ২০ জানুয়ারী, ২০১৭

আমি যদি হতাম পাখি

আমি যদি হতাম পাখি
ঢাকার আকাশ ভ্রমণ পরে,
যেতাম উড়ে হিমালয়ের ওপারে;
লাগতো না কোনো ভিসা, পাসপোর্ট।

হয়তোবা কোন একদিন,
প্যাগোডার ঘন্টার ধ্বনিতে
কিংবা মৃদুমন্দ এক পশলা বৃষ্টি শেষে।
দলবেঁধে ছুটতাম আবার
চীন পেরিয়ে মঙ্গোলিয়ার পথে।

উলান বাটোরের স্কাইস্ক্র্যাপারে বসে
ভাবতাম অবাক নয়নে,
যদিও নেই মোর কোন অর্থনীতি,
রাখে নি তো স্রষ্টা কভু তৃষ্ণার্ত, ক্ষুধার্ত।
মানুষ আমাকে জানতে চেয়েছে,
খুঁজতে মোর গতিপথ
বেঁধেছিল একদা পায়ে
জিপিএস ট্র্যাকিং ডিভাইস।

শোনো, হে মানব জাতি!
আমি কভু নই অতিথি।
ছিলাম না একক সম্পত্তি;
কোন কালে, কোন দেশের।
ভুলেও ভেবো না আমাকে ঘিরে
রবীঠাকুরের সেই লাইনখানি,
"আমি এসেছি নূতন দেশে
আমি অতিথি তোমারি দ্বারে।"
বরং ভাবতেই পারো গুরুর এই গানখানি
"আমি তোমারি মাটিরও কন্যা, জননী বসুন্ধরা।"